Abstracts

12 March 2015

Day-1: 11:00 TO 12:30 PLENARY SESSION at Uday Shankar Hall

Remembering My Experiments with Tabla Solo Performances

Shankar Ghosh, Tabla maestro

Hindusthani music is a very interesting combination of its traditional continuity of musical expressions and at the same time immense scope for creative expressions. Tabla was mostly used and understood as an accompanying instrument. The solo performances were mostly limited to common talas. I tried to take up lesser-played talas and formatted the solo that opened up the scope for a long duration tabla solo recital like a solo ina 9 matras tala for three and a half hours. I tried to look deeper into different solo recital components and tried new formatting, sequencing and arrangements.

Key-words: tabla, solo, talas, lesser-played, formatting, creative expressions

Day-1: 11:00 TO 12:30 PLENARY SESSION at Uday Shankar Hall

The ITC Sangeet Research Academy

Ravi Mathur, Executive Director, ITC Sangeet Research Academy

A time honored method of imparting music instruction is the Guru (preceptor) – Shishya (pupil) tradition. The loss of patronage from royalty and the zamindars in our country led to a decline in this system. To help revive and nurture this tradition, the ITC Sangeet Research Academy was created in 1977 as an independent Public Charitable Trust with a mission of perpetuating and propagating Hindustani Classical Music.

The ITC Sangeet Research Academy attempts to create the essence of a Gurukul which provides the comfort of a home to both Gurus and Scholars. Its training system is essentially the Guru-Sishya Parampara with suitable contemporary inputs. Over the 38 years of its existence, ITC Sangeet Research Academy has been home to some of the greatest names in Hindustani Classical Music and has nurtured Scholars who form some of today’s pre-eminent performers and Gurus. We wish to add that we make no claim other than one in which the Academy seeks to continue to look at newer horizons of pedagogical excellence.

ITC Sangeet Research Academy is the embodiment of sustained corporate commitment to a priceless national heritage. A commitment which has remained consistent for 38 years towards what is the world’s first and only professionally managed modern Gurukul. Blending modern day research methods with the purity of the age old Guru-Shishya tradition. It is recognised as the finest repository of Hindustani Classical Music.

Key wrods: ITC Sangeet Research Academy, Guru, Shishya, patronage, gurukul, Hindusthani Classical Music, repository


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. : Uday Shankar Hall

Contributions of the Courtesans, Baijis and Tawaifs in Kolkata’s Music Scenario        

Anindya Banerjee, Musician & Independent Researcher

In 1856, The Nawab of Oudh Wazid Ali Shah forced out of his beloved city of Lucknow and had to set up his second home in a dingy place called Metiaburuj in the outskirts of Kolkata. Wazid Ali Shah, patron of Dance and Music, came here with 300 baijis and cout performers including Pyara Sahib. In fact he brought with him traditions of Kathak and Thumri the two edifice that gave dimensions to Hindisthani Classical Music. With this the cities of Lucknow and Kolkata ties a pleasant bond of cultural heritage. Bai culture became an integral part of upper class Bengali life and formed the part of festivities of Durgapuja,marriage and Holi. Since the days of Nawab’s stay at Metiaburuj to the begining of 20th century a galaxy of Baijis descended upon Kolkata though all of them were described in Colonial literature just as Nautch Girls. Bais were in fact respected even in Court circles. They form the groups from which the court musicians came. Following the steps of the first generation of Kolkata Bais right upto fifties female artist came all over the country and settled in Kolkata. This paper will deal the contributions of these Bais in the classical music scenario in Kolkata discussing both Bengali and Non Bengali Baijis from begining of 19th Century to modern time through audio video clippings.

Key words: Wazid Ali Shah, Metiaburuj, Hindisthani Classical Music, baiji, Bai culture, Kolkata, Bengali, court circles


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. : Uday Shankar Hall

Thumri Gayaki of Kolkata- an Analytical Study

Dr. Tapasi Ghosh, University of Calcutta &  S.P. Nandi, Principal, TIGPS

Hindustani Classical Vocal Music unfolds the majestic beauty of the Raga through a logical and progressive development of notes except for Thumri. Thumri follows no well defined   patterns of elaboration but, frequently blends multiple ragas and thus affecting the distinct identity of each of them. It can be said that Thumri unfolds the Bhava within a Raga maintaining the grammar of Raga and Tala like khyaal and exploits various complex style like murki, khatka, meend, zamzama, chhut taan etc. Thumri has mainly two styles- Purav ang and Pashchim ang gayaki and Purav ang has three different gayakies namely Lucknow, Banaras and Gaya gayaki. Now- a-days it is observed that Thumri singers of Kolkata dominate all the festivals and utsavs of Thumri in India and abroad. Though Thumri is originated in Lucknow and Varanasi but at present a number of Thumri singers are there in Kokata. It is likely that Pandita Girija Devi and Bidushi Purnima Choudhury trained a huge number of students in Kolkata. The present study is a qualitative research trying to analyze and find out the common features of the Thumri singers of Kolkata with the help of tools like books, journals, CDs, internet searching, interviews etc. It has been seen that the main part of Thumri ie .Bolbanao is not satisfactory because of lack of command over the language of bandish ie. Hindi, Brajabhasha, Bhojpuri, Maithili or Audhi. Moreover, lack of command over the raga it is difficult to sing proper Bolbanao. It has been seen that many disciples imitate their guru or prominent Thumri singers, even their gesture of performance. On analyzing the gayaki of different Kolkata based Thumri singers it is found that the style they use mostly resemble the Purav ang gayaki and there is no perceptible evidence of uniqueness in styles which can be termed as Kolkata style.

 Keynote-   Thumri, Kolkata, Purav ang, Bolbanao, style, gayaki, uniqueness  


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. : Uday Shankar Hall

কলকাতায় বিষ্ণুপুর ঘরানার তিন প্রজন্মের শিল্পীদের সংগীত পরিবেশন রীতি

চন্দন কুমার রায়, অতিথি শিক্ষক, যন্ত্রসঙ্গীত বিভাগ, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

বহুকাল ধরেই শহর কলকাতা শিল্প ও সংস্কৃতির এক মিলন ক্ষেত্র হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে। সংগীত চর্চা তথা শাস্ত্রীয় সংগীতের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন ঘরানার সংগীত গুনীগন, তা সে কন্ঠ বা যন্ত্রসংগীত যাই হোক না কেন বিভিন্ন কারণে কলকাতায় চলে আসেন স্থায়ীভাবে এবং বংশ পরম্পরায় এখানে সংগীতের চর্চা, প্রচার ও প্রসার ঘটাতে থাকেন। বিভিন্ন ঘরানার একত্র উপস্থিতিতে নির্দিষ্ট করে কোন বিশেষ ঘরানার শিলশিলা বা পারম্পর্য অনুধাবন করা যায়না এবং মিশ্র সংস্কৃতির বৈশিষ্ট্য চোখে পড়ে।

বিষ্ণুপুর ঘরানা বাংলার একমাত্র প্রাচীন ঘরানা এবং এই ঘরানার তিন প্রজন্ম পঃ সত্যকিঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়, পঃ অমিয় রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় ও পঃ শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের সংগীত পরিবেশনের মধ্যে কতটা ঘরনাদারী বা গায়ন বৈশিষ্ট্য বজায় রেখেছেন বা কতটা মিশ্র সংস্কৃতি গ্রহন করেছেন তা যুক্তি নির্ভর তথ্যের সাহায্যে বিশ্লেষণ করা এই কাজের উদ্দেশ্য।

মুখ্য শব্দাবলী : কলকাতার শিল্প ও সংস্কৃতি, শাস্ত্রীয় সংগীত চর্চা, বিভিন্ন ঘরানার একত্র উপস্থিতি, শিলশিলা, বাংলার প্রাচীন ঘরানা,ঘরানার তিন প্রজন্ম, ঘরনাদারী, মিশ্র সংস্কৃতির প্রভাব.      


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. :  Bichitra Bhavan [Ground Floor]

Indian Classical Music Applications in Bengali Theater

Devajit Bandyopadhyay, Independent Researcher

True to the tradition of Indian Culture, in Bengal, eventually in Kolkata, music is all pervasive and has been so from time immemorial. Earthy and cerebral, material and spiritual, music is an effective medium of communication as well as a source of aesthetic fulfilment for human kind. It is music that co-ordinates all the elements of scenic presentation into a harmonious whole which is beyond our imagination.          The manifestation of this development in Kolkata, in a term Bengal, moreover             in India, was most visible in the theatrical activities since its maiden venture on           27 November 1795. From then on songs, enveloped into melodious and mellifluous classical music, have remained an integral part of Bengali theatre.            It was through these songs that dramatic themes and grand conflicts were expressed and reconciled. Progressively, Bengali theatre changed with time.              Its evolution was made possible through the contributions of many a profound mind. Its songs too responded to the change. In the process a rich genre of songs came into being — Mancha-Gaan or Theatre-Song, a different term  of Natyasangit.

As the Mancha-Gaan is very much theatre specific the composition of music to fit the perceived demeanor resulted in a compound of classical pieces and popular tunes. In the nineteenth century and early twentieth, the composers kept themselves to be loyal to grammatical or musicological framework of the classical ragas they select. Having firm knowledge in classical music, the composers of the time exploited and experimented with the resources they could bank on. On the other hand these songs also helped to popularise classical music. The                    simple tunes shorn of lengthy expositions, captivated theatre-goers as well                  as music-lovers, creating an interest in raga music. The proposal for my                   lecture-demonstration is a tribute, from the perspective of Mancha-Gaan              (Theatre-Song), to the thespians who charted the course of classical experimentations and lit up gray skies.

Key words: Bengal. theatre, song, Indian Classical Music, raga, music


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. :  Bichitra Bhavan [Ground Floor]

Identifying Sarod Players in the city Calcutta: 1856 to 1947

Troilee Dutta,  Ph.D. Scholar, Department of Instrumental Music, Rabindra Bharati University

During the 2nd half of 19th century, the sarod and sarodiyas had spread over various places across the country. But the majority of sarod activity, in terms of the numbers of performers and performance opportunities, was focussed in the metropolises, out of which Calcutta was by far the most important for the number of sarodiyas it created. In this way, the first half of 20th century Calcutta became noted for a few Bengali sarod players who learnt this instrument from the hereditary and khandani musicians and started performing with immense virtuosity. Thus, a tradition of sarod playing in Calcutta has been increasingly developedby many outstanding Calcutta sarodiyas .They started performing in the prominent conferences of the country, All India Radio and other music circles sharing the same stage with the leading musicians of India and exalted the city as well as the country by representing Indian Classical Instrumental music in the global scenario. Many of the Calcutta sarodiyas of pre-Independent India are lost into oblivion though their contribution to promote sarod and advance the instrumental music in Calcutta will always remain undeniable.This work is an effort to find out the presence and position of Calcutta sarod players before Indian liberation with a brief comparative study of musical centers regarding the practice of sarod and concentration of sarodiyas.

Key words: sarod, Calcutta, sarodiyas, contribution, pre-Independent India, comparative study


Day-1: 1:00 p.m. to 2:30 p.m. :  Bichitra Bhavan [Ground Floor]

Indian Classical Music and Bengali Cinema : Revisiting ‘Jalsaghar’ and ‘Devi’

Sookanya Sarker, Ph.D. Scholar, Department of Instrumental Music, Rabindra Bharati University

This presentation is an effort to revisit the musical journey of Satyajit Ray with two legendary figures of Indian Classical Music Ustad Vilayat Khan and Ustad. Ali Akbar Khan. These two music giants worked as Music Directors in Ray’s films Jalsaghar and Devi respectively. The film Jalsaghar was based on the popular short story of Tarashankar Bandyopadhyay. Ray  eliminated some aspects of zamindar’s life from the original story and this made the film more austere. Jalsaghar portrays zamindar’s love and respect for Indian Classical Music. In this film Ray used undiluted classical music and Kathak dance, which was new for Indian and Bengali cinema. Jalsaghar used a long vocal rendering, a short alap in veena and a long Kathak piece. The cinema-music featured the famous music legends like Begum Akhtar, Roshan Kumari, and Wahed Khan. Satyajit Ray’s “Devi”(1960) had Ustad Ali Akbar Khan as Music Director. Here the used music style was different from the music of Jalsaghar. We can witness use of Indian Classical Music and mix of other music styles like Tagore’s music. This was a well-thought blend and a graceful match in context of the film. This presentation will  discuss the music in context of the film sequences.

Key wrods: Satyajit Ray, film, Indian Classical Music, Vilayet Khan, Ali Akbar Khan, Jalsaghar, Devi, Tagore, zamindar, Kathak


Day-1: 3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Uday Shankar Hall

দ্য ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স

বাপ্পা সেন, সাধারন সম্পাদক, দ্য ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স

১৯৫২ সাল থেকে ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত’র সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গেছে ‘ডোভার লেন’ পাড়ার নাম। দক্ষিণ কলকাতা’র এক সমৃদ্ধশালি এলাকায় আজ থেকে ৬৩ বছর আগে প্রায় হঠাৎ করে শুরু হয়েছিল এক ‘পাড়ার জলসা’ অনুষ্ঠান যা কালক্রমে হয়ে উঠেছে বর্তমান’র দ্য ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স। একদিনে এই সংগঠনটি গড়ে ওঠেনি, তাকে পেরোতে হয়েছে বহু বন্ধুর পথ। শুধুমাত্র বার্ষিক সঙ্গীতানুষ্ঠান আয়োজন করার মধ্যেই ‘ডোভার লেন’ নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখেনি, ভারতীয় রাগ সঙ্গীত’র প্রসারে তারা কাজ করছে নিরলস ভাবে।

বর্তমান কালে ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতায়োজনের এই অন্যতম বৃহত্তম সংস্থা কী ভাবে শিল্পী বাছাই করার প্রাথমিক পর্ব থেকে শুরু করে চার রাত’র অনুষ্ঠান কে সাজিয়ে তোলার কাজকে সংগঠিত করছে এবং ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত’র স্বার্থে আর কী কাজ করছে বা করার প্রয়াস গ্রহণ করেছে তার একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণী ও অভিজ্ঞতা পেশ করা হবে।

প্রমুখ শব্দাবলী: ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স, ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত, কালক্রম, সঙ্গীতায়োজন


Day-1: 3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Uday Shankar Hall

An Overview of the Changing Selection, Production and Distribution Systems of All India Radio: Working with Indian Classical Music

Debasish Mukherjee, Assistant Director of Programs, All India Radio, Kolkata

All India Radio played a very important role in dissemination of Indian Classical Music amongst the listening public. The AIR presented Indian Classical Music through different sets of programs with different coverage areas, e.g. the local broadcasts and nation-wide broadcasts. It has changed its selection policies through changing the policies of auditioning system. It introduced grading system of musicians. It has also changed its production and archiving system. AIR reviews its policies time to time. AIR also faced challenges to appropriately address the changing demands of time. This presentation will discuss the role and management policies of All India Radio that are directly connected to Indian Classical Music.

Key words: All India Radio, audition, policy, Indian Classical Music, broadcast, coverage, grading


Day-1: 3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Uday Shankar Hall

Role of Doordarshan in propagation of Classical Music

Malini Mukhopadhyay, Assistant Director of Programmes, Doordarshan Kendra, Kolkata

With the disintegration of the Princely States, a need for proper support developed in order to encourage the great performers of the Indian Classical genre. This also became increasingly important for the preservation of this traditional art form. All India Radio (AIR) took the pioneering role in this field. With specific reference to the role of Doordarshan, I would like focus my talk on the sources of telecast content, the traditional constraints of dealing with Indian Classical Music on Doordarshan and finally I would like to throw light on the steps taken by Doordarshan for propagation of Classical Music.

 Key words: Indian classical music, Doordarshan, All India Radio, preservation, role, propagation, traditional, telecast, content, constraints


Day-1:  3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Bichitra Bhavan [Gr. floor]

শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর অবলুপ্তপ্রায় বাদ্যযন্ত্র

কৃষ্ণেন্দু দত্ত, সহ-অধ্যাপক, সিকিম বিশ্ববিদ্যালয়

উনবিংশ শতকে বাংলায় রাগ সঙ্গীত চর্চার যে অভূতপূর্ব পরিমণ্ডল তার কেন্দ্রীয় পুরুষরূপে স্যার রাজা শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর (১৮৪০-১৯১৪) বিবেচিত ও বহুমুখী সঙ্গীত প্রতিভার জন্য বিখ্যাত। কলকাতার বিখ্যাত পাথুরিয়াঘাটার জমিদার পরিবারে তাঁর জন্ম। পিতা হরকুমার ঠাকুর, মাতা শিব সুন্দরী দেবী। পিতা ও পিতামহ উভয়েই সঙ্গীতবিদ ও সঙ্গীতের অকৃপণ পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা যতীন্দ্র মোহন ঠাকুরও ছিলেন সঙ্গীতবিদ ও সঙ্গীতের উদার পৃষ্ঠপোষক। পিতা হরকুমার ঠাকুরের সময় থেকেই তাঁদের পাথুরিয়াঘাটা প্রাসাদে গুণী সঙ্গীতকারদের মিলনকেন্দ্ররূপে সঙ্গীত সভার পত্তন হয়। এই সাঙ্গীতিক পরিমণ্ডলেই শৌরীন্দ্র মোহনের জন্ম। প্রাথমিক বিদ্যা শিক্ষা হয় বাড়ীতে। ১৬ বছর বয়সে তিনি হিন্দু কলেজের পাঠ সমাপ্ত করেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি ‘ভূগোল ও ইতিহাস ঘটিত বৃত্তান্ত’ নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেন। পরবর্তীকালে সঙ্গীত বিষয় ব্যতিরেকে বাংলায় ও ইংরেজীতে মৌলিক রচনা ও অনুবাদসহ তিনি প্রায় কুড়িটি গ্রন্থ রচনা করেন। এরমধ্যে কাব্য ও নাট্য বিষয়ক গ্রন্থ সমূহ বিশেষ উল্লেখযোগ্য।

শৌরীন্দ্র মোহন যখন পরিপূর্ণভাবে সঙ্গীত সাধনায় নিয়োজিত হন তখন তাঁর বয়স মাত্র সতের। হিন্দু কলেজের পাঠ ততদিন সাঙ্গ হয়েছে। এরই মধ্যে দুটি গ্রন্থ তিনি রচনা করেছেন। তাঁর প্রথম সঙ্গীতগুরু ক্ষেত্রমোহন গোস্বামী। উনবিংশ শতকের সাঙ্গীতিক কর্মকাণ্ডের এই স্মরণীয় গুণী যতীন্দ্রমোহনের সঙ্গীত সভায় তখন নিযুক্ত রয়েছেন। ক্ষেত্রমোহনের কাছে শৌরীন্দ্র মোহনের শিক্ষালাভ ঘটে কন্ঠসঙ্গীতে। যন্ত্র সঙ্গীতে তাঁর প্রথম গুরু হলেন বারাণসীর প্রসিদ্ধ বীণকার লক্ষ্মী প্রসাদ মিশ্র। যন্ত্রে শৌরীন্দ্রমোহনের অপর শিক্ষক ছিলেন বিখ্যাত সেতারী-সুরবাহারী সাজ্জাদ মুহম্মদ। তাছাড়া তাঁদের পারিবারিক সঙ্গীত সভায় নিযুক্ত তৎকালের বিখ্যাত সঙ্গীতগুণীদের দ্বারা নানাভাবে সঙ্গীত বিষয়ে উপকৃত হতেন শৌরীন্দ্র মোহন। জনৈক জার্মান সঙ্গীতবিদের কাছে তিনি দীর্ঘদিন ধরে পিয়ানোর পাঠ নিয়েছেন বলে জানা যায়।

প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের ক্রিয়াত্মক ও উপপত্তিক, সঙ্গীতের এই উভয় বিভাগেই অসাধারণ ব্যুৎপত্তি লাভ করেছিলেন শৌরীন্দ্রমোহন। ক্রিয়াত্মক সঙ্গীতে তাঁর পারদর্শিতা অসামান্য হলেও গবেষক ও পৃষ্ঠপোষকরূপেই তাঁর খ্যাতি সমধিক উজ্জ্বল। সঙ্গীত গ্রন্থ রচনায় ও পৃষ্ঠপোষকতার তিনি এক অসামান্য উদাহরণ স্থাপন করে গিয়েছেন।

শৌরীন্দ্র মোহন আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করতে শুরু করেন মাত্র ৩৫ বছর বয়স থেকে। ১৮৭৫ খ্রীষ্টাব্দে ফিলাডেলফিয়া বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ডক্টর অব্‌ মিউজিক উপাধিতে ভূষিত করেন। রোমের পোপ ত্রয়োদশ লিও শৌরীন্দ্র মোহনকে সঙ্গীতে অসাধারণ বুৎপত্তির জন্য খেতাব প্রদান করেন এবং তা গ্রহণের জন্য তাঁকে আমন্ত্রণ জানান। এরপর বেলজিয়ামের রাজা দ্বিতীয় লিওপোল্ড তাঁকে পদক উপহার দেন। গ্রীস, ইতালী ও জার্মানীর সম্রাটগণ শৌরীন্দ্র মোহনকে তাঁদের ছবি উপহার দেন। ফ্রান্স, ইতালী, সুইডেন, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, পর্তূগাল, ইরাণ, চীন প্রভৃতি দেশ থেকেও শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর সম্মানিত হন। সঙ্গীতে অবদানের জন্য রাণী ভিক্টোরিয়া তাঁকে কে.সি.আই. খেতাব দেন। ১৮৯৬ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ডক্টর অব্‌ মিউজিক উপাধি প্রদান করেন। এছাড়া ফ্লোরেন্স থেকে প্রকাশিত Biographical Directory with portraits of there hundred eminent men of the world গ্রন্থে শৌরীন্দ্র মোহনের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়।

প্যারিস থেকে প্রকাশিত Pelfege University Dictrinary গ্রন্থেও বিশ্বের ৫০জন শ্রেষ্ঠ সঙ্গীতবিদের মধ্যে শৌরীন্দ্র মোহনের নাম ও তাঁর রচিত একটি অন্তর্ভুক্ত হয়। নেপাল রাজ দরবার থেকে তিনি সঙ্গীত নায়ক ও সঙ্গীত সাগর উপাধিতে ভূষিত হন। ইংরেজ সরকার থেকেও সঙ্গীতে অবদানের জন্য তিনি রাজা খেতাব লাভ করেন।

শৌরীন্দ্র মোহন ভারতীয় বাদ্যযন্ত্রের এক সমৃদ্ধ সংগ্রহশালা গড়ে তুলেছিলেন। নানাস্থান থেকে তিনি যেমন বাদ্যযন্ত্র সংগ্রহ করেন, তেমনি দক্ষ কারিগর রেখে প্রচুর যন্ত্র তিনি নির্মাণও করিয়ে নেন। এছাড়া রাগ সমূহের ধ্যান মূর্তিও তিনি চিত্র শিল্পীদের দ্বারা আঁকিয়ে নিয়েছিলেন। বাংলায় স্বরলিপি রচনার বিষয়েও শৌরীন্দ্র মোহনের নাম স্মরণীয় হয়ে আছে। ক্ষেত্রমোহন গোস্বামীর স্বরলিপি প্রচারে তিনি ছিলেন প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং তিনি নিজেও নানা গ্রন্থে বহু স্বরলিপি প্রকাশ করেন। শৌরীন্দ্র মোহন বহু উৎকৃষ্ট গানও রচনা করেন। হাঙ্গেরীর বিখ্যাত বেহালাবাদক এডওয়ার্ড রেমেনি শৌরীন্দ্র মোহনের সিতার বাদনের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন।

শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর কোলকাতার সঙ্গীত সমাজের বেশ কিছু বাদ্য যন্ত্রের পরিচিতি প্রদান করেন। এরমধ্যে কিছু অবলুপ্ত, কিছু বিলুপ্তপ্রায়। আমার বক্তব্য লুপ্তপ্রায় বাদ্যযন্ত্রের সীমানায় থাকবে।

মুখ্যশব্দ: সুষির বাদ্য, লুপ্তপ্রায়, তত বাদ্য, আনদ্ধ বাদ্য, শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর, কোলকাতা


Day-1:  3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Bichitra Bhavan [Gr. floor]

ঊনবিংশ শতকে রাগ সংগীত চর্চা : সুতানুটি ঠাকুর বাড়ির ভূমিকা

নিত্যানন্দ বাগ, পি.এইচ. ডি. গবেষক,  যন্ত্রসঙ্গীত বিভাগ, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

অষ্টাদশ শতকে প্রথম কলকাতায় আসেন পঞ্চানন ঠাকুর। তিনি ভাগীরথীর তীরে গোবিন্দপুরে বাসস্থান গড়ে তোলেন। যা বর্তমানে ফোর্ট উইলিয়াম দূর্গ নামে পরিচিত। এখানেই তার পুত্র জয়রাম ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিতে চাকরি করতেন ১৭৫৬ খৃষ্টাব্দে। এই সময় নবাব সিরাজউদৌল্লা কলকাতা আক্রমন করেন। জয়রামের দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুত্র নীলমনি ও দর্পনারায়ন এই স্থান ত্যাগ করে উত্তরে সুতানুটীতে স্থায়ী বসবাস স্থাপন করেন। বর্তমানে এই জায়গার নাম পাথুরিয়াঘাটা।

দর্পনারায়নের দ্বিতীয় পুত্র গোপীমোহন ঠাকুর বাড়িতে উচ্চাংগ সংগীতের আসর বসাতেন। গুনী শিল্পীদের আনতেন আসরে। স্থানীয় অভিজাত পরিবারের মানুষদের আমন্ত্রন জানানো হত। গোপীমোহনের পঞ্চম পুত্র হরকুমার ঠাকুর নিজে সেতার শেখা শুরু করেন। পাশাপাশি বাড়িতে দূর দূরান্ত থেকে শিল্পীদের আমন্ত্রন জানিয়ে তাদের গান বাজনা শুনতেন। পাশাপাশি নিজের সন্তান সন্ততিদের সংগীত শিক্ষায় উৎসাহিত করতেন। পারিবারিক সাঙ্গীতিক পরিবেশের সুফল পেয়েছিল পরবর্তী প্রজন্ম। আধুনিক উচ্চ শিক্ষার পাশাপাশি সংগীত শিক্ষার ক্ষেত্রে আধুনিক চিন্তার উদয় হয়েছিল। ছেলেদের সংগীত শিক্ষার জন্য বিষ্ণুপুর ঘরানার প্রখ্যাত শিল্পী ক্ষেত্রমোহন গোস্বামীকে নিযুক্ত করেন। তিনি শৌরীন্দ্রমোহন ঠাকুরকে সংগীত শেখাতেন। পরে বারানসীর প্রসিদ্ধ বীণা বাদক লক্ষী প্রসাদ মিশ্রের কাছে বীনা বাজানো এবং স্বনামধন্য সেতার সুরবাহার বাদক সাজ্জাদ মহম্মদের কাছে সেতার ও সুরবাহার শিখেছেলেন শৌরীন্দ্রমোহন। এই সংগীত গুনীরা সুতানটীর সংগীত দরবারে দীর্ঘদিনের জন্য স্থায়ীভাবে নিযুক্ত ছিলেন।এই সাংগীতিক পরিবেশে শৌরীন্দ্রমোহন নিজেকে গড়ে তুলেছিলেন। তাঁর বহু অবদান রয়েছে ক্রিয়াত্মক ও ঔপপত্তিক ক্ষেত্রে। যেগুলি আলোচনা ও বিশ্লেষন করা হবে।

মূখ্য শব্দাবলী : অষ্টাদশ শতক, পঞ্চানন ঠাকুর, গোবিন্দপুর, ফোর্ট উইলিয়াম দূর্গ, জয়রাম, ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি,নীলমনি, দর্পনারায়ন, গোপীমোহন ঠাকুর, সুতানুটী, পাথুরিয়াঘাটা, ক্ষেত্রমোহন গোস্বামী, বিষ্ণুপুর ঘরানা, শৌরীন্দ্রমোহন ঠাকুর, সাজ্জাদ মহম্মদ, সেতার, সুরবাহার।     


Day-1:  3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Bichitra Bhavan [Gr. floor]

কলকাতায়উচ্চাংগসংগীত চর্চায় সমস্যা ও সম্ভাবনা

মুনমুন রায়, অধ্যাপিকা, নেতাজী শতবার্ষিকী মহাবিদ্যালয়

কলকাতায় প্রায় ২০০ বছর ধরে উচ্চাঙ্গসংগীতের চর্চা চলে আসছে। ইংরেজরা যখন কলকাতায় এসেছিলেন তখন কলকাতায় বাবু কালচার বিদ্যমান ছিল। কেউ টাকার ঘুড়ি ওড়ান, কেউ ফানুষ ওড়ান টাকা এঁটে। এসবের প্রতিযোগিতা হত উত্তর কলকাতার রাজা ও জমিদার বাড়ির মধ্যে। ঘোড়ার গাড়িতে চেপে কোঁচা দুলিয়ে গড়ের মাঠে হাওয়া খেতে যেত বাবুরা। উৎসবের সময় কোথাও কোথাও হত কবি গান, তরজা, খেউড়, আখড়াই, কীর্তন বা ঢপ কীর্তন।কিছু কিছু মুঘল দরবারের ধ্রুপদ ও খেয়াল শিল্পী বাংলায় আসতে শুরু করেছিল ইংরেজ আমলে। রাজা রামমোহন রায় খেয়াল গাইতেন। ক্ষেত্রমোহন গোস্বামী বিষ্ণুপুর থেকে ধ্রুপদ শিখে কলকাতায় গান শেখাতেন পাথুরিয়াঘাটা রাজবাড়িতে। তার ছাত্র ছিলেন শৌরীন্দ্র মোহন ঠাকুর। এখানেই তিনি প্রথম অর্কেষ্ট্রা গঠন করেন। গানের স্কুল গড়ে তোলেন। এখানেই তিনি বিশিষ্ট বীনকার লক্ষী প্রসাদ মিশ্রকে পান। বীনা বাজানো শেখেন। জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়িতে আসেন যদু ভট্ট। এখানেও উচ্চাঙ্গসংগীত চর্চা শুরু হয়। দেবেন্দ্রনাথের ইচ্ছায় জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি উচ্চাঙ্গসংগীতের এক প্রধান কেন্দ্র হয়ে ওঠে। রামমোহনের ব্রহ্মসঙ্গীত রচনায় উচ্চাঙ্গসংগীতের সুর স্থান পায়। ধীরে ধীরে কলকাতায় বেশ কিছ সংগীত শিক্ষা কেন্দ্র গড়ে ওঠে। কেউ কেউ বিদ্যালয়ও স্থাপন করেন। কিন্তু ক্রমে রেডিও, গ্রামোফোন এসে পড়ায় উচ্চাঙ্গ সংগীতের পাশাপাশি অন্যান্য সংগীতেরও প্রসার বাড়ে। বিশেষ করে পাশ্চাত্য প্রভাবিত আধুনিক গানের প্রচার ও প্রসার বাড়ে। কলকাতায় ও পাশাপাশি অঞ্চলে উচ্চাঙ্গ সংগীতের আসর বসে বড় করে। বহু মানুষ উচ্চাঙ্গ সংগীত শেখার জন্য সক্রিয় হয়ে ওঠে। এভাবে চলতে থাকলেও ক্রমে মিডিয়ার দৌরাত্ম বাড়ে। উচ্চাঙ্গ সংগীতের প্রসার ঘটলেও প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার প্রসার ও শ্রোতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে গণমাধ্যম গুলোর সদর্থক ভূমিকার অভাব ছিল। অন্যদিকে নানা ধরণের হাল্কা গানের ব্যাপক প্রসার ঘটে চলে।কলকাতায় অনেক গানের স্কুল গড়ে ওঠে। সেগুলিতে সরকারী কোন নিয়ন্ত্রন নেই। শিক্ষার মান নিয়েও কারো কোন কথা নেই। গানের স্কুল গুলোতে উচ্চাঙ্গ সংগীতের উপযুক্ত শিক্ষকের অভাবে উচ্চাঙ্গ সংগীত সম্পর্কে অনেকের অনীহা তৈরি হয়। বিশেষ করে কলকাতা থেকে দূরে উচ্চাঙ্গ সংগীতের প্রসারে সরকারী বা বে-সরকারী কোন উদ্যোগই সেভাবে চোখে পড়েনা। সরকারীভাবে স্কুল গুলোতেও উচ্চাঙ্গ সংগীত শেখানোর ব্যাপারে কোন গুরুত্ব দেয়নি। ফলে শ্রোতা গড়ে না ওঠায় কলকাতার মধ্যেকার অনেক গুনী শিল্পীদেরও রাজ্যের মধ্যে যথাযথ মর্যাদা পেতে অসুবিধায় পড়তে হয়।বর্তমানে মিডিয়ার দৌরাত্ম বেড়েছে। চটকদারিত্বের সীমা অতিক্রম করছে অনেক টিভি চ্যানেল। উচ্চাঙ্গ সংগীতের কোন অনুষ্ঠান প্রায় চোখে পড়েনা। সমস্যা আরো আছে। উচ্চাঙ্গ সংগীত শেখার পর গুনী শিল্পীরা কাজও পান না আবার অন্যভাবে বেঁচে থাকার উপায়ও করতে পারেননা। ফলে বাবা মা-র ইচ্ছা থাকলেও সন্তান সন্ততিদের উচ্চাঙ্গ সংগীত শেখানোর বিশেষ করে সম্পূর্ণভাবে উচ্চাঙ্গ সংগীতে নিমগ্ন করার সাহস পাননা। লক্ষনীয় যে অনেকেই যথেষ্ট প্রতিভা থাকা সত্বেও আয়ের কথা ভেবে নিজেদের লঘু সংগীতের জগতে টেনে নিয়ে যেতে বাধ্য হন। কারণ সেখানে কিছুটা বাজার রয়েছে। তুলনায় বিদেশে স্থান পাচ্ছে কিছু গুনী শিল্পী। দেশের গুণী শিল্পীরা চলে যাচ্ছেন বিদেশের মানুষের কাছে। দেশ তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এর থেকে রাস্তা আমাদেরই খুঁজে বের করতে হবে। কলকাতায় উচ্চাঙ্গ সংগীতের প্রসারে শিক্ষক ও গবেষকদের যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে।

মুখ্য শব্দাবলী :উচ্চাঙ্গ সংগীতের, মিডিয়ার দৌরাত্ম, বাজার, চটকদারিত্ব, গুণী শিল্পী, বিদেশ, লঘু সংগীতের টান, আসর।


13 March, 2015

Day-2: 10:30 TO 12:00 PLENARY SESSION at Uday Shankar Hall

Classical Music in Kolkata in the early 20th century: Re-reading Amiyanath Sanyal

Amlan Dasgupta, Professor, Department of English Jadavpur University & Director, School of Cultural Texts and Records, Jadavpur University

The paper offers a reappraisal of the depiction of the musical culture of Kolkata in the early decades of the 20th century in Amiyanath Sanyal’s celebrated account Smritir Atale (In the Recesses of Memory).


Day-2:  10:30 TO 12:00 PLENARY SESSION at Uday Shankar Hall

The Kolkata Shoilee of Khayal

Dr. Asit Kumar De, Senior Professor & Head, Theory Division, Saha Institute of Nuclear Physics and Vocalist

The main subject of the presentation would be, how influences of major khayal and dhrupad gharanas and other factors including important personalities have shaped the current prevalent style of khayal-singing in and around Kolkata. The discussion will focus on the choice of ragas, talas, bandishes, tempo of the tala, different khayalangas including tana patterns, and ornamentations and embellishments that characterize the major stream of khayal singing in Kolkata. The current form of the popular Kolkata-style Khayal where an elaborate exposition of fast sargam and sapat-tankari immediately follow the bol-vistar in the so-called 48-matra vilambit Ektala will be compared with the traditional forms.

Keywords: Khayal, Raga, Tala, Bandish, Khayalangas, Kolkata


 Day-2: 12:30 p.m. to 2:00 p.m. : Uday Shankar Hall

Music Criticism versus Value of Art with a Focus to Music Criticism in Kolkata

Goutam Ghosh, Associate Professor, Department of Instrumental Music, Rabindra Bharati University

Music criticism is nothing but an intellectual activity of applying appropriate analysis method to evaluate the quality of musical performance in live and recorded forms. The musicologist Winton Dean once said, “Music is probably the most difficult of the arts to criticize.” In my view, a critic helps to understand the music enthusiasts about the musicians’ creations through critical analysis. The critics comprehend and interpret the created art pieces. They require to have deep insight of the art-style. As an evaluator a critic is supposed to be able to judge between good, less good and the bad. They serve moral duties for the society by sifting the art carefully. Appropriate criticisms present useful pointers for artists to think ahead for more successful productions. In Kolkata Indian classical Music criticisms has its long standing. The critics opted for varying styles of criticisms to cater to the requirements of the art, the readers and the presentation media. My effort will be to objectively present the involved music-criticism practices in the city.

Key notes: Winton Dean, critique, insight, music, art works, pointers, Kolkata


Day-2: 12:30 p.m. to 2:00 p.m. : Uday Shankar Hall

 Music Criticism: The Educated Listener Matters

Arpita Chatterjee, Independent researcher

This presentation will take a bird’s eye-view of the changing styles of musical performance (19th century – present day) and how that has had an impact on the educated listener/music critic. It will also compare the different styles used to write about music performances, by citing examples and will attempt to explain the invaluable role of music criticism in the preservation of Indian classical music.

While critically examining the impact of changing attitudes, the presentation will also try to look at new ways in which the educated listener can contribute to ensuring that the Hindustani music tradition remains protected.

Key words: musical performance, music education, communication skills


Day-2: 12:30 p.m. to 2:00 p.m. : Uday Shankar Hall

In the Shadow of Reforms: New Listeners and Publicists in Bengal (1940-1970)

Sagnik Atarthi, PhD. Scholar, Centre for Studies in Social Sciences, Calcutta

 

Taking cue from recent historical scholarship this paper looks at the diffusion and reception of classical music (North Indian/Hindustani) in the Bengali context from a ‘public cultural’ perspective. It traces the emergence of a new constituency of listeners and the connoisseurship of classical music in Bengal in the wider background of public sphere transition and musical reforms in modern India. The paper will mainly focus on the developments in concert life of Calcutta around the mid-twentieth century considering the new relationship between listeners, critics and musicians in the altered context. The concluding section will briefly address the transformation of music and listening in the present and argue for the specificities of appreciation within an established regime of taste and connoisseurship.

 

Keywords: North Indian classical music,Bengal, publics, modernity, reform, democratization, listeners, sociality, appreciation, criticism, mediation, praxis

 


Day-2: 13 March 12:30p.m.  to 2:30 p.m.  | Aban Mancha]

Miscellaneous Music Applications in Kolkata

3:30 p.m. to 5:00 p.m.: Aban Mancha

Development of Solo Pakhawaj Playing Style in North Calcutta

Partha Pratim Choudhury, Guest Teacher, Department of Instrumental Music, Rabindra Bharati University

A pakhawaj gharana has been operating in the Thanthania and Baghbazar area of North-Calcutta for more than 200 years. This activity is the result of Lala Keval Kishan’s taking refuge in Calcutta. Lala Keval Kishan was a court musician of Ali Gauhar (1728-1806) widely known as Shah Alam-II. The zamindars of Thanthania, the two brothers, Nimai Chakraborty and Shriram Chakraborty offered hospitality to Keval Kishen, kept him in their house, and accepted him as their Guru. This was the starting point of a new gharana in north-Calcutta that was mainly centred to Baghbazar and Thanthania area. Mridangacharya Murari Gupta was the outcome of this noble gesture of the earlier mentioned Chakraborty brothers. He had the opportunity to learn with Nimai Chakraborty. Murari Gupta trained a number of students and made efforts to disseminate this pakhawaj playing style. Among his students the most prominent names are Durlabh Bhattacharjee and Lal Chand Baral. This new generation of pakhawaj players started teaching and this chain went on. As a result this produced a line of pakhawaj players with the passage of time. This gharana worked on pakhawaj and developed a style of solo performance when pakhawaj was mainly used as an accompanying instrument. My presentation will try to unfold the solo performance style of pakhawaj as developed in this gharana.

Key words: pakhawaj, north-Calcutta, Thanthania, Baghbazar, Keval Kishen, Durlabh Bhattacharjee, Lal Chand Baral, solo.


Day-2: 13 March 12:30p.m.  to 2:30 p.m.  | Aban Mancha]

কলকাতায় অ-ভারতীয়দের আগমন ও অ-ভারতীয় বাদ্যযন্ত্রে ভারতীয় রাগ রাগিনীর নতুন রূপ

ড. দেবাশিস মন্ডল, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর, যন্ত্রসঙ্গীত বিভাগ, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

ভারতীয় সঙ্গীতে পাশ্চাত্য প্রভাব পড়েছিল ঊনবিংশ শতকে ও পরবর্তীকালে। ঠাকুরবাড়িতে পিয়ানো বাজাতে পারতেন দেবেন্দ্রনাথ। জ্যোতিরিন্দ্রনাথ খুব ভালো পিয়ানো বাজাতেন। কত সুর তিনি রচনা করতেন পিয়ানোতে। কলকাতার পাশ্চাত্য বাদ্যযন্ত্রে ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত বাজানো সম্ভবত হারমোনিয়ামেই শুরু হয়। যদিও ডায়াটনিক স্কেল। কাটা কাটা আওয়াজ। তবুও রাগের স্বরূপকে ধরতে বেশি অসুবিধা হয়নি। সন্তুর ভারতীয় বাদ্য হলেও পাশ্চাত্য বাদ্যের অনুসরণে তৈরি। কতকটা পিয়ানোর মত। তাতেও যে সুর রচিত হয় তা ঠিক শ্রুতির বিচারে মেলে না। কলকাতার উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত নিয়েও পরীক্ষা গবেষণা চলেছে বহু কাল ধরে। বেহালা যেভাবেই আসুক তার সুর ভারতীয় রাগ রচনায় অনবদ্য একথা সবাই মানবেন। উস্তাদ আলী আকবার খান বিদেশে ‘আলী আকবর কলেজ অফ মিউজিক’ চালু করেছিলেন বিংশ শতকে। এরপর বিদেশে ভারতীয় সঙ্গীত এর চাহিদা বাড়ে। বড়, মাঝারি মাপের বহু শিল্পী কলকাতা থেকে ডাক পান আমেরিকায়, ইউরোপে। আলোচনা অনুষ্ঠান বাড়তে থাকে। বিদেশ থেকেও কলকাতায় আসেন বহু মানুষ এখানে থেকে বিভিন্ন গুনী শিল্পীদের সঙ্গে পরিচিত হতে, আর শিখতে।তারাও সেতার, সরোদ বেহালায় ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতকে বুঝতে ও বাজাতে শেখে। ভারতীয় সুর শিখে বুঝে নিজেদের যন্ত্রে ভারতীয় সুর বাজানোর চেষ্টা করে, সফলও হয়। যদি অনেক ক্ষেত্রেভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের সম্পূর্ণরূপ একেবারে ঠিকভাবে প্রকাশিত হয় না, তথাপি তা নতুনতর আবেশ সৃষ্টি করে। তাদের বাদন পদ্ধতি ভারতীয় সুরকে সমৃদ্ধ করেছে। সম্প্রতি লক্ষ্য করলে দেখাযাবে বহু বিদেশী শিল্পী কলকাতায় ভারতীয় পোশাক পরে নিজেদের বাদ্যযন্ত্রে বিভিন্ন রাগের সফল অনুষ্ঠান করছেন। এর মধ্যে কলকাতায় বেশ নাম করেছেন অল্টো স্যাক্সোফোনে অ্যানড্রিউ কে, সুপ্রানো স্যাক্সোফোনে জোনাথন কে। জেসে ব্যানিষ্টারও সম্প্রতি কলকাতায় বেশ কিছু অনুষ্ঠানে স্যাক্সোফোনএ ভারতীয় রাগ সংগীত পরিবেশন করেছেন। এরা ভারতীয় রাগসংগীত পরিবেশন করছেন কলকাতার উত্তরে-দক্ষিনে, পূবে সর্বত্র। কলকাতা থেকেই ব্যাপ্তি ঘটছে ভারতীয় সংগীতের। এইসব শিল্পীরা কলকাতায় আসছেন। বহু অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হচ্ছেন।আবার কলকাতায় বহু গুরুর কাছে সঙ্গীত শিক্ষা গ্রহণ করেছেন কেউ কেউ। বিশ্বায়ণের এর পর গণমাধ্যম বিশেষ করে ইন্টারনেট এর মাধ্যমে যোগাযোগ বেড়েছে। আমেরিকা, ইউরোপে বসে কলকাতার সঙ্গীত গুরুর কাছে তালিম নিচ্ছে বহু শিক্ষার্থী।কলকাতায় ভারতীয় সংগীত শিখতে আসছে অভারতীয় বিদেশীরা অনেকেই। জাপান, ফিলিপাইন্স, আমেরিকা, ইউরোপ থেকে প্রতি বছরই ছাত্র আসছে। ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সংগীতের সঙ্গে মিশছে, বিদেশী সুর। হয়তো সমৃদ্ধ হচ্ছে। তবে পরীক্ষা নীরিক্ষার পর্ব শুরু হয়েছে বিশ্বায়ণের যুগে। এর সুফল নিশ্চয় মিলবে।

মুখ্য শব্দাবলী : পাশ্চাত্য প্রভাব,নবিংশ শতক , হারমোনিয়াম, পাশ্চাত্য বাদ্যযন্ত্র,ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত,ইন্টারনেট


Day-2: 13 March 12:30p.m.  to 2:30 p.m.  | Aban Mancha]

কলকাতার তবলা নির্মাণ : ইতিহাস ও বর্তমান

উদয়শঙ্কর রায়, পি.এইচ. ডি. গবেষক,  যন্ত্রসঙ্গীত বিভাগ, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

অষ্টাদশ শতক থেকে কলকাতায় কমবেশি উচ্চাঙ্গ সংগীতের চর্চা শুরু হয়। ঊনবিংশ শতকে কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলে উচ্চাঙ্গ সংগীতের চর্চা বাড়ে। উচ্চাঙ্গ সংগীতের সঙ্গে কলকাতায় উত্তর ভারত থেকে পাখোয়াজ ও তবলা এসে হাজির হয়। স্থানীয় বিভিন্ন চর্মবাদ্যের কারিগররা আগে খোল, ঢাক, ঢোল ইত্যাদি নির্মাণ করত। তাদের কাছে তবলা নির্মানের পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিলনা। কিন্তু গাব যুক্ত বাদ্যযন্ত্র নির্মানের অভিজ্ঞতা ছিলই। এছাড়া তবলা থেকে উৎপন্ন শব্দের সঙ্গে তারা পরিচিত হয়ে প্রয়োজন মত আকার আয়তন, চামড়া ও গাব দিয়ে তবলা বাদ্য যন্ত্র নির্মান শুরু করে।লখনৌ এর নির্বাসিত নবাব ওয়াজেদ আলি শাহ ১৮৫৬ খৃষ্টাব্দে কলকাতার মেটিয়াবুরুজে উচ্চাঙ্গ সংগীতের আসর শুরু করেন। তাঁর অর্থের অভাব ছিলনা। ভিন্ন রাজ্য থেকে বাদ্যযন্ত্রী ও যন্ত্র নির্মাতারা কলকাতায় এসে হাজির হয়। তাদের সাহায্যে কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলে উচ্চাঙ্গ সংগীত প্রসার লাভ করে।এই সময় নবাব ওয়াজেদ আলি শাহর সঙ্গে প্রায় ১০০ জন সংগীতজ্ঞ ও বহু বাদ্যযন্ত্রী এসেছিল। তাদের সঙ্গে এসেছিল বেশ কিছু বাদ্যযন্ত্র নির্মাতা। তারাও মেটিয়াবুরুজেই বসবাস স্থাপন করেছিল। পরে তারা কলকাতার বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে পড়ে। উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতে সঙ্গতের ক্ষেত্রে অপরিহার্য বাদ্যযন্ত্র হল তবলা ও বাঁয়া। তবলা নির্মানের পাশাপাশি কলকাতায় বিভিন্ন মৃদঙ্গ, পাখোয়াজ ও তবলা সঙ্গত করা হত। এই সব বাদ্যযন্ত্র নির্মানের জন্য সাধারণভাবে এক বিশেষ (হরিজন/বন্ধু) সম্প্রদায়ের মানুষরাই নিযুক্ত থাকত। তাদের মধ্যে কেউ কেউ ঢাক ঢোল বাজাত। নির্মাণও করত তারা নিজেরাই। ছুতোরদের কাছে কাঠের ভিতরের অংশকে কুঁদে নিয়ে চামড়ার যাবতীয় কাজ করত তারাই। চামড়াকে ট্যান করা, তার লোম তুলে মাংসল অংশকে বাদ দিয়ে পাতলা করা, পাগড়ি তৈরি করে তাকে কাঠের ফাঁকা অংশের দুদিকে ঢাকের বা ঢোলের উপর বসানো, টান টান করে বাদ্যযন্ত্রের রূপ দেওয়া পর্যন্ত। পরে যখন উচ্চাঙ্গ সংগীত কলকাতায় অভিজাতদের দরবারে স্থান পায় তখন থেকে বাদ্যযন্ত্রীদেরও মর্যাদা বাড়ে। সমাজের অন্য অংশের মানুষেরাও এই কাজে যুক্ত হন। তবলা নির্মানে বিশেষ দক্ষতার প্রয়োজন। ফলে শব্দ সম্বন্ধে যাদের সূক্ষ্ম ধারণা আছে এবং চামড়ার কাজে দক্ষ তারাই এই যন্ত্র নির্মান করতে পারেন। প্রথমে লক্ষনৌ, বেনারস থেকে কারিগর এলেও পরে স্থানীয় মানুষরা তবলা নির্মান করতে থাকে। তবলা নির্মানের অনেকগুলি পর্যায় আছে। কলকাতার বেশ কিছু অঞ্চলে তবলা খুব ভালোভাবে নির্মান করা হয়। বিশেষভাবে মেটিয়াবুরুজ, কালিঘাট, বরানগর, বৌবাজার, দক্ষিনেশ্বর, দমদম, চেতলা, চিতপুর প্রভৃতি স্থানে। বিভিন্ন জায়গায় তবলা নির্মাণের পদ্ধতির মধ্যে কিছু পার্থক্য রয়েছে। কারিগরের দক্ষতার উপর নির্ভর করে বাদ্যযন্ত্রের গুনগত মান। নানা ধরণের উপকরণ ব্যবহৃত হয় তবলা নির্মাণে, গাব তৈরি করা সবই অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে করা হয়।কলকাতা থেকে দেশ বিদেশের প্রথিতযশা তবলা শিল্পীরা তবলা নির্মাণ করিয়ে বা ছাউনি করিয়ে নিয়ে যান। উল্লেখ্য কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলে প্রায় ১০ হাজার মানুষ এই পেশার সঙ্গে যুক্ত।

মুখ্য শব্দ : অষ্টাদশ শতক, উচ্চাঙ্গ সংগীত, তবলা, নির্মাণ, কলকাতা, লক্ষনৌ, বেনারস, কারিগর, মেটিয়াবুরুজ, কালিঘাট, বরানগর, বৌবাজার, দক্ষিনেশ্বর, দমদম, চেতলা, চিতপুর


 

Day-2: 13 March 12:30p.m.  to 2:30 p.m.  | Aban Mancha]

 কলকাতায় শাস্ত্রীয় সংগীত প্রসারে সংগীত আসরের অবদান

ড. পাপড়ী চক্রবর্তী, অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর, ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট ইউনিভার্সিটি

শিল্পী মনের নিজস্ব তাগিদ বা আত্মিক উন্নতির জন্য যে সংগীত সেই সংগীতে যখন পৃষ্ঠপোষক বা সমঝদারের খুশি আদায় করবার দায় এসে পড়ল তখন থেকেই শুরু সংগীত আসর তথা সংগীত সম্মেলনের যুগ। পরিবর্তনশিল সমাজে প্রতিনিয়তই পাল্টে যাচ্ছে সংগীত আসরের চরিত্র। কালে কালে বদলে যাওয়া সংগীতের আঙ্গিক উপস্থাপনার ধরণ বিবর্তনের চিত্র ধরা পড়েছে সেই আসরের ইতিহাসের পাতায় পাতায়। মন্দির প্রাঙ্গন থেকে দরবারী মাইফেল – সামাজিক – রাজনৈতিক তথা রাষ্ট্রনৈতিক পরিকাঠামো পরিবর্তনে শাস্ত্রীয় সংগীত পৃষ্ঠপোষনায় পালা বদল ঘটেছে প্রতিনিয়ত আর তার প্রতিফলন ঘটেছে শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের আসরগুলিতে। তাতে শাস্ত্রীয় সংগীত স্বাধীন ভারতে সর্ব প্রথম গণতান্ত্রিক প্রথায় নির্বাচিত সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা লাভ করেছিল মধ্যপ্রদেশে। এর পর উত্তর প্রদেশে ও আরো অনেক রাজ্যে। পশ্চিমবঙ্গ সরকারও ক্রমে এব্যাপারে স্বাস্থ্যকর দৃষ্টান্ত স্থাপনে এগিয়ে এসেছে। রাজ্য সরকারের তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তর শাস্ত্রীয় সংগীত প্রসারে ক্ষেত্রে সক্রিয় ভূমিকা নিতে গড়ে তুলেছে রাজ্য সংগীত আকাদেমি। সংরক্ষন, গবেষণা, প্রশিক্ষন, তথ্য সরবরাহ ও মহার্ঘ পুস্তক সম্ভার তথা প্রকাশনা কার্য এই দপ্তরটি অন্যতম কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত। বিভিন্ন সরকারী বে-সরকারী শাস্ত্রীয় সংগীতের আসরে বিগত ২৬ বছরের ইতিহাস পর্যালোচনায় বাংলার এই সংগীতে ক্রমান্বয়ে উন্নতি তথা অবনতির অংশটি আমাদের বুঝতে সাহায্য করবে। আমরা পাবো বাংলার শাস্ত্রীয় সংগীত চর্চার ক্ষেত্রে নতুন আঙ্গীক তথা ধারার পরিচয় যা সংগীত আসরের মাধ্যমে শ্রোতাদের কাছে, শিক্ষার্থীর কাছে পৌঁছে গেছে। ১৯৮৯ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে রাজ্য সংগীত আকাদেমি একই বছরে তিনটি সংগীত সম্মেলনের আয়োজন করে শাস্ত্রীয় সংগীত প্রসারে ও প্রচারে এক অনন্য নজির গড়ে তুলতে পেরেছিল।এর পরও রাজ্য সরকার বহু আসরের আয়োজন করেছিল। যেখানে বহু নবীন প্রবীন শিল্পী তাদের সংগীত পরিবেশন করেছেন। শ্রোতাও ছিলেন প্রচুর। কিন্তু বিগত একযুগে বদলেছে সংগীত রীতি, আঙ্গীক উপস্থাপনার ভঙ্গী। তাই অবসম্ভাবীভাবে আসরের পরিবর্তনটাও অনিবার্যভাবেই এসেছে। আজ অধিকাংশ রাগ সংগীতের আসরই শ্রতার অভাবে মলিন। শুধুমাত্র নামী শিল্পীর আসরেই শ্রোতার ভীড়। আসরে সমঝদার শ্রোতা বরাবরই বিরল- কারণ গ্ল্যামার প্রীতি। জীবন যাপনের অবকাশের অভাব সারাদিন সময় নষ্ট করার বদলে রেডিও বা টিভির সংক্ষিপ্ত সংগীতানুষ্ঠান শোনার শ্রোতাই অধিক। তাই মস্ত প্রেক্ষাগৃহ ভরে ওঠেনা। শিল্পীরাও ডিম্যাণ্ড ও সাপ্লাই রীতি অনুসরণ করে শুধুমাত্র হাততালি পেতেই আগ্রহী হয়েছে। তবুও সংগীত আসরে ধারাবাহিক ইতিহাসই এতকাল বাংলাতথা কলকাতার ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছে। সেদিনের মতো নয়, আজকের মতো করেই চলেছে আসরের ধারা। সময় ও সংঘাতের মধ্যদিয়ে আজও বেরিয়ে আসার পথ চেয়ে আছি আমরা।

মুখ্য শব্দাবলী :শিল্পী মন, নিজস্ব তাগিদ, কলকাতার ঐতিহ্য, ডিম্যাণ্ড ও সাপ্লাই রীতি, আসর,সংগীত সম্মেলন, সংরক্ষণ, গবেষণা, প্রশিক্ষণ, তথ্য সরবরাহ, মহার্ঘ পুস্তক সম্ভার, প্রকাশনা কার্য।  


 বর্তমানে কলকাতায় লখনৌ ঘরানা তবলা

বিশ্বজিত ভট্টাচার্য, অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর, যন্ত্রসঙ্গীত বিভাগ, রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়  

কলকাতা বর্তমানে সঙ্গীত চর্চার ক্ষেত্রে খুব-ই গুরুত্বপূর্ণ স্থান তথা ভূমিকা অবলম্বন করছে. এখানে বিভিন্ন ঘরানার এক উদার সমন্নয় বিশেষ ভাবে লক্ষ্য করার মত. তার-ই সুত্র ধরে তবলার বিভিন্ন ঘরানার সাথে পুরব বাজ হিসাবে লখনৌ ঘরানার বিশেষ একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান লক্ষ্য করা যায়. এখানে লখনৌ ঘরানার স্রষ্টাদের মধ্যে প্রবাদ প্রতিম অনেক ব্যক্তিত্ব কলকাতায় এসে উক্ত ঘরানার বাদন শৈলীর বাদন প্রক্রিয়া এবং উক্ত ঘরানার প্রচার করেছেন. সেই সূত্রেই গুরুশিষ্য পরম্পরা অনুযায়ী বর্তমানে ভারতবর্ষের প্রচলিত তবলার ঘরানা গুলির মধ্যে লখনৌ ঘরানার তবলা বাদন শৈলী-ও বিশেষ ভাবে কলকাতার সঙ্গীত মহলে অত্যন্ত সমাদরের সঙ্গে নিজের এক গুরুত্ব পূর্ণ স্থান করে নিয়ে প্রভূত জনপ্রিয়তা লাভ করে চলেছে. কত্থক নৃত্য শৈলী এবং গানের ক্ষেত্রে ঠুংরী গানের উল্লেখ হলেই সর্বাগ্রে লখনৌ ঘরানা এবং তবলার বাদন প্রক্রিয়ার কথাই সবার মনে পড়ে. সুতরাং বর্তমানে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র বা একক বাদন, কত্থক নৃত্যের সঙ্গে সঙ্গত এবং ঠুংরী গানের সঙ্গে সঙ্গতের কথা উঠলেই লখনৌ ঘরানা তবলার কথা উল্লেখ না করলেই নয়. এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা বর্তমানে অনস্বীকার্য একথা বলাই বাহুল্য.

বর্তমানে কলকাতায় লখনউ ঘরানা তবলা বাদন এক বিশেষ ভাবে লক্ষনীয় বিষয় .এখানে গুরু শিষ্য পরম্পরায় এক বিশেষ আঙ্গিকে লখনউ তবলা বাদন কলকাতায় প্রচলিত হচ্ছে .ওস্তাদ আবিদ হুসেন খলিফা মহাশয়ের রচনা শিষ্য তথা প্রশিষ্য বর্গের দ্বারা এবং ওস্তাদ ওয়াজেদ হুসেন খলিফার রচনা তাঁর শিষ্য প্রশিষ্য বর্গের দ্বারা , এই দুয়ের সংমিশ্রন কলকাতায় বর্তমানে লখনউ ঘরানা তবলার এক নতুন রূপ বিশেষ ভাবে লক্ষনীয় এবং আকর্ষনীয় হয়ে উঠছে বলে আমার অনুমান.

প্রমুখ শব্দাবলী: কলকাতা, লখনৌ ঘরানা, তবলা, বাদন-শৈলী, নতুন রূপ

 

A UGC SAP-DRS Project